techowe.com https://www.techowe.com/2023/04/computerharddiskdrive.html

কম্পিউটারের হার্ডডিস্ক ড্রাইভ (HDD) থেকে মুছে ফেলা ডেটা কীভাবে পুনরুদ্ধার করবেন?

সারা বিশ্বের লক্ষ লক্ষ মানুষ প্রতিদিন তাদের ডেটা সঞ্চয়, স্থানান্তর বা অ্যাক্সেস করতে কম্পিউটার এবং অন্যান্য ইলেকট্রনিক ডিভাইস ব্যবহার করে। দুর্ভাগ্যবশত, আধুনিক প্রযুক্তির দৃঢ়তা এবং নির্ভরযোগ্যতা সত্ত্বেও ডেটা হারানো ব্যক্তি এবং প্রতিষ্ঠানের জন্য একটি সাধারণ এবং জটিল সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। দুর্ঘটনাজনিত মুছে ফেলা, হার্ডওয়্যার ব্যর্থতা, সফ্টওয়্যার দুর্নীতি বা সাইবার আক্রমণ যাই হোক না কেন, বিভিন্ন কারণে ডেটা ক্ষতি হতে পারে। ডেটা হারানো ব্যক্তি এবং প্রতিষ্ঠানের জন্য একইভাবে হতাশাজনক এবং ধ্বংসাত্মক হতে পারে। সৌভাগ্যবশত, সঠিক পদক্ষেপ এবং সঠিক টুল ব্যবহার করে HDD থেকে মুছে ফেলা ডেটা পুনরুদ্ধার করা প্রায়ই সম্ভব। এই আর্টিকেলে আমরা কিছু উপায় অন্বেষণ করব যেগুলো অনুসরণ করে আপনি আপনার কম্পিউটার HDD থেকে মুছে ফেলা ডেটা এবং আপনার হারিয়ে যাওয়া ফাইলগুলি পুনরুদ্ধার করতে পারবেন।

ডেটা রিকভারি কি?

ডেটা পুনরুদ্ধার হল আপনার হারিয়ে যাওয়া বা মুছে ফেলা ডেটা পুনরুদ্ধার করার সমাধান। ডেটা রিকভারি হল ডিজিটাল স্টোরেজ ডিভাইস যেমন হার্ড ড্রাইভ, সলিড স্টেট ড্রাইভ, ইউএসবি ড্রাইভ, মেমরি কার্ড এবং অপটিক্যাল মিডিয়া থেকে হারিয়ে যাওয়া, ক্ষতিগ্রস্ত বা দুর্ঘটনাক্রমে মুছে ফেলা ডেটা পুনরুদ্ধার করার প্রক্রিয়া। হার্ডওয়্যার ব্যর্থতা, সফ্টওয়্যার ত্রুটি, মানবিক ত্রুটি, প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং দূষিত আক্রমণ সহ বিভিন্ন কারণে ডেটা হারিয়ে যেতে পারে। গুরুত্বপূর্ণ ডেটা হারানো ধ্বংসাত্মক হতে পারে, বিশেষ করে যদি এতে ব্যক্তিগত বা ব্যবসায়িক তথ্য জড়িত হয়।

কিভাবে ডেটা রিকভারি কাজ করে?

ডেটা পুনরুদ্ধারের কাজটি স্টোরেজ ডিভাইসে অ্যাক্সেস করে যেখানে হারিয়ে যাওয়া বা মুছে ফেলা ডেটা সংরক্ষণ করা হয় এবং ডেটা বের করার এবং পুনর্গঠনের জন্য বিশেষ সফ্টওয়্যার সরঞ্জাম বা কৌশল ব্যবহার করে। ক্ষতির পরিমাণ এবং পুনরুদ্ধার করা ডেটার পরিমাণের উপর নির্ভর করে ডেটা পুনরুদ্ধার প্রক্রিয়া জটিল এবং সময়সাপেক্ষ হতে পারে। কিছু ক্ষেত্রে আপনার পেশাদার ডেটা পুনরুদ্ধার পরিষেবাগুলির সাহায্যের প্রয়োজন হতে পারে যাদের বিশেষ সরঞ্জাম এবং গুরুতরভাবে ক্ষতিগ্রস্ত স্টোরেজ ডিভাইসগুলি থেকে ডেটা পুনরুদ্ধারের অভিজ্ঞতা রয়েছে। প্রক্রিয়াটি সাধারণত নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি অন্তর্ভুক্ত করে:

  • মূল্যায়ন এবং নির্ণয় - ডেটা পুনরুদ্ধারের প্রথম ধাপ হল ক্ষতির পরিমাণ নির্ণয় করা এবং ডেটা ক্ষতির অন্তর্নিহিত কারণ নির্ণয় করা। এতে স্টোরেজ ডিভাইসের শারীরিক অবস্থা পরীক্ষা করা, একটি সফ্টওয়্যার স্ক্যান করা বা ডেটা হারানোর কারণ নির্ধারণের জন্য অন্যান্য পরীক্ষা করা জড়িত থাকতে পারে।

  • অনুলিপি এবং চিত্র - একবার ডেটা ক্ষতির কারণ সনাক্ত করা গেলে পরবর্তী পদক্ষেপটি হল প্রভাবিত স্টোরেজ ডিভাইসের একটি অনুলিপি বা চিত্র তৈরি করা। এটি মূল ডেটার আরও ক্ষতি রোধ করতে এবং পুনরুদ্ধার প্রক্রিয়ার জন্য একটি ব্যাকআপ প্রদানের জন্য করা হয়।

  • ডেটা পুনরুদ্ধার সফ্টওয়্যার বা কৌশল: একটি স্টোরেজ ডিভাইসের একটি অনুলিপি বা চিত্র তৈরি করার পরে ডেটা পুনরুদ্ধার সফ্টওয়্যার সরঞ্জাম বা কৌশলগুলি ডেটা বিশ্লেষণ করতে এবং পুনরুদ্ধারযোগ্য ফাইলগুলি সনাক্ত করতে ব্যবহার করা যেতে পারে। সফ্টওয়্যার সরঞ্জামগুলি ফাইল খোদাই, ফাইল স্বাক্ষর বিশ্লেষণ এবং ক্ষতিগ্রস্ত ফাইলগুলি পুনর্গঠনের জন্য অ্যালগরিদম ব্যবহার সহ ডেটা পুনর্গঠনের জন্য বিভিন্ন পদ্ধতি ব্যবহার করে।

  • নিষ্কাশন এবং পুনরুদ্ধার: একবার একটি পুনরুদ্ধারযোগ্য ফাইল সনাক্ত করা হলে এর অর্থ হল সম্পূর্ণ ডেটা বের করা এবং পুনরুদ্ধার করা। এর মধ্যে মূল ফাইল পুনরুদ্ধার করা বা পুনরুদ্ধার করা ডেটা দিয়ে একটি নতুন ফাইল তৈরি করা অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।

  • যাচাইকরণ এবং বৈধতা - পুনরুদ্ধার করা ডেটা তার অখণ্ডতা এবং নির্ভুলতা নিশ্চিত করার জন্যই যাচাই করা হয়। ব্যাকআপ কপি বা অন্যান্য উৎস থেকে পুনরুদ্ধার করা ডেটা সম্পূর্ণ এবং সঠিক কিনা তা নিশ্চিত করতে পরীক্ষা করা যেতে পারে।

ডেটা হারানোর সাধারণ কারণ

স্মার্টফোন, ল্যাপটপ এবং ডেস্কটপ কম্পিউটারের মতো ইলেকট্রনিক ডিভাইস ব্যবহার করে এমন লোকেদের দ্বারা ডেটা হারানো একটি সাধারণ সমস্যা। ডেটা হারানো একটি চাপযুক্ত এবং হতাশাজনক অভিজ্ঞতা হতে পারে, বিশেষ করে যদি ডেটা অপরিহার্য হয়। এখানে আমরা ডেটা হারানোর কিছু সাধারণ কারণ নিয়ে আলোচনা করব।

  • দুর্ঘটনাজনিত মুছে ফেলা: দুর্ঘটনাক্রমে গুরুত্বপূর্ণ ফাইলগুলি মুছে ফেলা ডেটা হারানোর সবচেয়ে সাধারণ কারণগুলির মধ্যে একটি। এটি সহজেই ঘটতে পারে, বিশেষ করে টাচস্ক্রিন ব্যবহার করার সময়, যেখানে অনিচ্ছাকৃত সোয়াইপ আইটেম মুছে ফেলতে পারে। সুতরাং, আপনি ফাইল মুছে ফেলার আগে দুবার চেক করুন৷

  • হার্ডওয়্যার ব্যর্থতা: হার্ডওয়্যার ব্যর্থতা ডেটা হারানোর আরেকটি প্রচলিত কারণ। হার্ডওয়্যার ব্যর্থতা এমন একটি পরিস্থিতিকে বোঝায় যেখানে একটি কম্পিউটার সিস্টেমের একটি শারীরিক উপাদান বা ডিভাইস ত্রুটিপূর্ণ বা সঠিকভাবে কাজ করা বন্ধ করে দেয়। যখন একটি হার্ডওয়্যার উপাদান ব্যর্থ হয়, কম্পিউটার সিস্টেমে কার্যকারিতা পুনরুদ্ধার করার জন্য এটি মেরামত বা প্রতিস্থাপনের প্রয়োজন হতে পারে। গুরুত্বপূর্ণ ফাইল হারানো এড়াতে আপনি নিয়মিত আপনার ডেটা ব্যাক আপ নিশ্চিত করুন।

  • ভাইরাস এবং ম্যালওয়্যার: ভাইরাস এবং ম্যালওয়্যার হল দুটি ক্ষতিকারক সফ্টওয়্যার যা কম্পিউটার সিস্টেম, নেটওয়ার্ক এবং ডেটার ক্ষতি করতে পারে। আপ-টু-ডেট অ্যান্টিভাইরাস সফ্টওয়্যার ব্যবহার করা এবং ভাইরাস এবং ম্যালওয়্যার থেকে সুরক্ষার জন্য সমস্ত সফ্টওয়্যার এবং অপারেটিং সিস্টেমকে নিরাপত্তা বলয়ে আপ-টু-ডেট রাখা গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়াও, ব্যবহারকারীদের ফাইলগুলি ডাউনলোড এবং খোলার সময় বা অজানা লিঙ্কগুলিতে ক্লিক করার সময় সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত এবং অযাচিত অনুরোধগুলিতে সংবেদনশীল তথ্য সরবরাহ করা উচিত নয়।

  • বিদ্যুৎ বিভ্রাট: বিদ্যুৎ বিভ্রাট অপ্রত্যাশিতভাবে ঘটতে পারে। আপনি যদি বিভ্রাটের সময় কম্পিউটার বা ইলেকট্রনিক ডিভাইসে কাজ করেন তবে তা ডেটা ক্ষতির কারণ হতে পারে। ডেটা ক্ষতি রোধ করতে একটি নিরবচ্ছিন্ন পাওয়ার সাপ্লাই (ইউপিএস) ব্যবহার করার কথা বিবেচনা করতে পারেন।

  • সফ্টওয়্যার দুর্নীতি: সফ্টওয়্যার দুর্নীতি এমন একটি পরিস্থিতিকে বোঝায় যেখানে সফ্টওয়্যার ফাইল বা প্রোগ্রামগুলি ক্ষতিগ্রস্ত বা দূষিত হয়ে যায়। এটি বিভিন্ন কারণে হতে পারে, যেমন সফ্টওয়্যার বাগ, হার্ডওয়্যার ব্যর্থতা, পাওয়ার বিভ্রাট, ম্যালওয়্যার সংক্রমণ বা অনুপযুক্ত শাটডাউন। যখন সফ্টওয়্যারটি নষ্ট হয়ে যায় তখন এটি ক্র্যাশ, ত্রুটি বার্তা এবং ডেটা ক্ষতির মতো বিভিন্ন সমস্যার কারণ হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, একটি ক্ষতিগ্রস্থ ফাইল সঠিকভাবে খুলতে বা কাজ করতে সক্ষম নাও হতে পারে, যার ফলে ডেটা ক্ষতি বা প্রয়োজনীয় কাজগুলি সম্পূর্ণ করতে অক্ষমতা হতে পারে। সফ্টওয়্যার দুর্নীতি প্রতিরোধের জন্য সর্বশেষ নিরাপত্তা আপডেট সহ সমস্ত সফ্টওয়্যার এবং অপারেটিং সিস্টেম আপ টু ডেট রাখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ৷

  • মানুষের ত্রুটি: মানুষ ভুল করে৷ মানব ত্রুটি হল একটি শব্দ যা মানুষের দ্বারা সম্পাদিত ভুল বা ভুল ক্রিয়াগুলি বর্ণনা করতে ব্যবহৃত হয়, যার প্রায়শই নেতিবাচক ফলাফল বয়ে আনে। ভুল ড্রাইভ ফরম্যাট করা, বিদ্যমান নথি প্রতিস্থাপন করতে একটি নতুন নথি সংরক্ষণ করা, বা একটি গুরুত্বপূর্ণ নথি বন্ধ করার সময় "Don't Save" এ ক্লিক করলে ডেটা চলে যেতে পারে৷ তাই এসব কাজ সম্পাদনের সময় সতর্কতার সাথে বার বার চেক করতে ভুলবেন না এবং নিয়মিতভাবে আপনার কাজ সেভ করে রাখবেন৷

  • প্রাকৃতিক দুর্যোগ: বন্যা, ভূমিকম্প, টর্নেডো বা অগ্নিকাণ্ডের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগ ইলেকট্রনিক ডিভাইসের ক্ষতি করতে পারে এবং এর ফলে ডেটা নষ্ট হতে পারে। তাই সবসময় ডাটা ব্যাক আপ করে নিরাপদ জায়গায় সংরক্ষণ করুন।

  • চুরি: স্মার্টফোন বা ল্যাপটপের মতো ইলেকট্রনিক ডিভাইস চুরির ফলে ডেটা নষ্ট হতে পারে। অননুমোদিত অ্যাক্সেস রোধ করতে আপনার ডিভাইসে একটি পাসওয়ার্ড বা বায়োমেট্রিক নিরাপত্তা সক্রিয় আছে তা নিশ্চিত করুন।

  • অপর্যাপ্ত স্টোরেজ স্পেস: অপর্যাপ্ত স্টোরেজ স্পেস ডেটা হারানোর আরেকটি কারণ। নিশ্চিত করুন যে আপনি নিয়মিতভাবে অপ্রয়োজনীয় ফাইল মুছে ফেলছেন বা পর্যাপ্ত জায়গা তৈরি করতে একটি বহিরাগত স্টোরেজ ডিভাইসে স্থানান্তর করুন।

  • দুর্ঘটনাজনিত ক্ষতি: দুর্ঘটনাজনিত কারণে  ইলেকট্রনিক ডিভাইসগুলি ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে। এর ফলে ডেটা নষ্ট হতে পারে। তাই আপনি যত্ন সহকারে আপনার ইলেকট্রনিক ডিভাইসগুলি পরিচালনা করুন এবং সুরক্ষামূলক কভার বা কেস ব্যবহার করুন।

  • সফ্টওয়্যার আপগ্রেড: সফ্টওয়্যার আপগ্রেড সঠিকভাবে না করা হলে ডেটা ক্ষতি হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, একটি অপারেটিং সিস্টেম বা অ্যাপ্লিকেশন সফ্টওয়্যার আপগ্রেড করার সময় গুরুত্বপূর্ণ ফাইলগুলি সঠিকভাবে ব্যাক আপ না করা ডেটা ক্ষতির কারণ হতে পারে। সফ্টওয়্যার আপগ্রেড করার সময় প্রতিটি পদক্ষেপ সর্বোত্তমভাবে অনুসরণ করা গুরুত্বপূর্ণ, যেমন ব্যাকআপগুলি সম্পাদন করা, বিদ্যমান হার্ডওয়্যার এবং সফ্টওয়্যারের সাথে সামঞ্জস্য যাচাই করা এবং এটি সক্রিয় করার আগে একটি নিয়ন্ত্রিত পরিবেশে নতুন সংস্করণ পরীক্ষা করা।

  • অসমর্থিত ফাইল ফরম্যাট: অসমর্থিত ফাইল ফর্ম্যাটগুলিও ডেটা ক্ষতির কারণ হতে পারে। প্রযুক্তির উন্নতির সাথে সাথে কিছু ফাইল ফরম্যাট পুরানো বা নতুন হার্ডওয়্যার বা সফ্টওয়্যারের সাথে বেমানান হয়ে যেতে পারে, যা সেই ফর্ম্যাটে সঞ্চিত ডেটা অ্যাক্সেস বা পুনরুদ্ধার করা কঠিন বা অসম্ভব করে তুলতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, মালিকানাধীন ফর্ম্যাটে সংরক্ষিত পুরানো ওয়ার্ড প্রসেসিং ফাইলগুলি সফ্টওয়্যারের নতুন সংস্করণ দ্বারা পাঠযোগ্য নাও হতে পারে।

কম্পিউটার হার্ড ডিস্ক ড্রাইভ (HDD) থেকে মুছে ফেলা ডেটা কীভাবে পুনরুদ্ধার করবেন?

সঠিক পদক্ষেপ এবং সঠিক সরঞ্জামগুলি ব্যবহার করে আপনি একটি HDD থেকে মুছে ফেলা ডেটা খুব সহজেই পুনরুদ্ধার করতে পারেন। একটি কম্পিউটার হার্ড ডিস্ক ড্রাইভ (HDD) থেকে মুছে ফেলা ডেটা পুনরুদ্ধার করা একটি জটিল প্রক্রিয়া হতে পারে৷ এখানে আমরা কিছু উপায় অন্বেষণ করব যেগুলো অনুসরণ করে আপনি আপনার কম্পিউটার HDD থেকে মুছে ফেলা ডেটা এবং হারিয়ে যাওয়া ফাইলগুলি পুনরুদ্ধার করতে পারেন:

1. অবিলম্বে HDD ব্যবহার বন্ধ করুন

HDD থেকে মুছে ফেলা ডেটা পুনরুদ্ধার করার প্রথম এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ হল অবিলম্বে হার্ড ডিস্ক ড্রাইভ ব্যবহার বন্ধ করা। আপনি যখন একটি ফাইল বা ফোল্ডার মুছে দেন, এটি আসলে আপনার HDD থেকে স্থায়ীভাবে মুছে যায় না। কম্পিউটার সেই অবস্থানটিকে চিহ্নিত করে যেখানে নতুনভাবে ডেটা সংরক্ষণ করা হয় যার অর্থ এটি নতুন ডেটা দ্বারা ওভাররাইট করা যেতে পারে। অতএব, আপনি যদি HDD ব্যবহার করা চালিয়ে যান বা নতুন ফাইল সংরক্ষণ করেন তবে আপনি কখনই আপনার ডেটা পুনরুদ্ধার করতে পারবেন না।

2. ডেটা পুনরুদ্ধার সফ্টওয়্যার ব্যবহার করুন

একটি HDD থেকে মুছে ফেলা ডেটা পুনরুদ্ধার করার সবচেয়ে কার্যকর উপায়গুলির মধ্যে একটি হল বিশেষ ডেটা পুনরুদ্ধার সফ্টওয়্যার ব্যবহার করা। ডেটা পুনরুদ্ধার সফ্টওয়্যারটি হার্ড ডিস্ক ড্রাইভ স্ক্যান করে মুছে ফেলা ডেটাগুলিকে তাদের আসল অবস্থায় পুনরুদ্ধার করতে কাজ করে । Free এবং Paid অনেকগুলি ডেটা পুনরুদ্ধারের Tools রয়েছে যা তাদের বৈশিষ্ট্য, ব্যবহারের সহজতা এবং কার্যকারিতার মধ্যে পরিবর্তিত হয়।

সবচেয়ে জনপ্রিয় কিছু ডেটা রিকভারি সফটওয়্যার টুলের মধ্যে রয়েছে EaseUS Data Recovery Wizard, Recuva, Stellar Data Recovery, Disk Drill, এবং R-Studio। এই সরঞ্জামগুলি আপনাকে যে ধরনের ফাইল পুনরুদ্ধার করতে চান তা নির্বাচন করতে, মুছে ফেলা ডেটার জন্য HDD স্ক্যান করতে, পুনরুদ্ধারযোগ্য ফাইলগুলির পূর্বরূপ দেখতে এবং সেগুলিকে একটি নিরাপদ স্থানে পুনরুদ্ধার করতে দেয়৷ কিন্তু মনে রাখবেন যে সমস্ত মুছে ফেলা ডেটা ডেটা পুনরুদ্ধার সফ্টওয়্যার ব্যবহার করে পুনরুদ্ধার করা যায় না, বিশেষ করে যেগুলি ওভাররাইট বা দূষিত।

3. ম্যানুয়াল পুনরুদ্ধার পদ্ধতি ব্যবহার করুন

যদি ডেটা পুনরুদ্ধার সফ্টওয়্যার আপনার মুছে ফেলা ডেটা পুনরুদ্ধার করতে ব্যর্থ হয় তাহলে আপনি ম্যানুয়াল পুনরুদ্ধারের পদ্ধতিগুলি ব্যবহার করতে পারেন। এই পদ্ধতিগুলি HDD থেকে মুছে ফেলা ফাইলগুলি পুনরুদ্ধার করতে কমান্ড প্রম্পট বা একটি ফাইল নিষ্কাশন সরঞ্জাম ব্যবহার করে। ম্যানুয়াল পুনরুদ্ধারের পদ্ধতিগুলি সঠিক ব্যবহার করতে জটিল এবং কিছু প্রযুক্তিগত জ্ঞানের প্রয়োজন হয়। তাই এই কাজগুলি করতে আপনার সতর্কতার সাথে এগিয়ে যাওয়া উচিত।

ম্যানুয়াল পুনরুদ্ধার পদ্ধতিগুলির মধ্যে একটি হল HDD থেকে মুছে ফেলা ফাইলগুলিকে একটি নিরাপদ স্থানে কপি করতে কমান্ড প্রম্পট ব্যবহার করা। এটি করার জন্য, আপনাকে কমান্ড প্রম্পট উইন্ডোতে "cd ecycled" টাইপ করতে হবে এবং এন্টার চাপুন। এটি আপনাকে রিসাইকেল বিন ফোল্ডারে নিয়ে যাবে, যেখানে মুছে ফেলা ফাইলগুলি থাকতে পারে। এরপর আপনি একটি নতুন অবস্থানে মুছে ফেলা ফাইল অনুলিপি করতে "কপি" কমান্ড ব্যবহার করতে পারেন।

আরেকটি ম্যানুয়াল পুনরুদ্ধারের পদ্ধতি হলো WinHex বা DiskExplorer। এই সরঞ্জামগুলি আপনাকে মুছে ফেলা ডেটার জন্য HDD স্ক্যান করতে, পুনরুদ্ধারযোগ্য ফাইলগুলির পূর্বরূপ দেখতে এবং সেগুলিকে একটি নতুন অবস্থানে বের করতে সহায়তা করে৷ সাধারণত ফাইল নিষ্কাশন সরঞ্জামগুলি ব্যয়বহুল হতে পারে এবং উচ্চ স্তরের প্রযুক্তিগত দক্ষতার প্রয়োজন হতে পারে।

4. পেশাদার ডেটা পুনরুদ্ধার পরিষেবাগুলি ব্যবহার করুন

যদি অন্য সব সিস্টেম ব্যর্থ হয়, আপনি আপনার মুছে ফেলা ডেটা পুনরুদ্ধার করতে পেশাদার ডেটা পুনরুদ্ধার পরিষেবাগুলি আপনি ব্যবহার করতে পারেন। ডেটা পুনরুদ্ধার পরিষেবাগুলি সেই সকল সংস্থাগুলি সরবরাহ করে থাকে যাদের দক্ষতা, সরঞ্জাম এবং কৌশলগুলি ক্ষতিগ্রস্থ হার্ড ডিস্ক ড্রাইভগুলি থেকে ডেটা পুনরুদ্ধারের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজন। এই কোম্পানিগুলি HDD গুলি থেকে ডেটা পুনরুদ্ধার করতে পারে যেগুলি ম্যালওয়্যার আক্রমণের শিকার হয়েছে এবং তারা ডেটা পুনরুদ্ধার করতে চৌম্বকীয় শক্তি মাইক্রোস্কোপি, ইলেক্ট্রন মাইক্রোস্কোপি বা রাসায়নিক বিশ্লেষণের মতো উন্নত পদ্ধতি ব্যবহার করে৷

পেশাদার ডেটা পুনরুদ্ধার পরিষেবাগুলি ব্যয়বহুল হতে পারে এবং শতভাগ গ্যারান্টি দিতে পারবে না যে তারা সফলভাবে আপনার ডেটা পুনরুদ্ধার করতে সক্ষম হবে৷ অতএব, পেশাদার ডেটা পুনরুদ্ধার পরিষেবাগুলি ব্যবহার করার আগে সর্বদা ডেটা পুনরুদ্ধার সফ্টওয়্যার বা ম্যানুয়াল পুনরুদ্ধারের পদ্ধতিগুলি ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়৷

আপনার ডেটা ব্যাক আপ করার গুরুত্ব

ডেটা ব্যাকআপ হল সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ ফাইল এবং নথির একটি অতিরিক্ত অনুলিপি তৈরি করার প্রক্রিয়া যাতে ডেটা অপ্রত্যাশিত ক্ষতি বা ক্ষতি থেকে সুরক্ষিত থাকে। আজকের ডিজিটাল যুগে ডেটা ব্যাকআপ ব্যবসায়ী থেকে ব্যক্তি সকলের জন্য অপরিহার্য হয়ে উঠেছে। ডিজিটাল প্রযুক্তির বিকাশের ফলে প্রচুর পরিমাণে তথ্য তৈরি করা, সঞ্চয় করা এবং অ্যাক্সেস করা সহজ হয়েছে। তাই সংরক্ষিত তথ্যের পরিমাণ বাড়ার সাথে সাথে সেই ডেটা ব্যাক আপ করার প্রয়োজনীয়তাও বৃদ্ধি পেয়েছে।

হার্ডওয়্যার ব্যর্থতা, সফ্টওয়্যার দুর্নীতি, দুর্ঘটনাজনিত মুছে ফেলা, প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং সাইবার নিরাপত্তা হুমকির মতো বিভিন্ন কারণে ডেটা ক্ষতি হতে পারে। ওয়ার্ল্ড ব্যাকআপ ডে 2020 এর সমীক্ষা অনুসারে, 29% ডেটা ক্ষতি হয় দুর্ঘটনাজনিত মুছে ফেলার কারণে, 22% হার্ডওয়্যার ব্যর্থতার জন্য এবং 14% সফ্টওয়্যার দুর্নীতির কারণে। উপরন্তু, IBM's Cost of a Data Breach রিপোর্ট অনুসারে 2020 সালে বিশ্বব্যাপী ডেটা লঙ্ঘনের খরচ প্রতি লঙ্ঘন $3.86 মিলিয়নে পৌঁছেছে। এই পরিসংখ্যান ডেটা ব্যাকআপের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে।

ডেটা ব্যাকআপ সকল ব্যবসায়ী এবং ব্যক্তিদের জন্য একইভাবে অপরিহার্য। ডেটা যে কোনও ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের একটি গুরুত্বপূর্ণ সম্পদ এবং এর ক্ষতি ব্যবসার উপর বড় প্রভাব ফেলতে পারে, যেমন রাজস্ব হ্রাস এবং ব্র্যান্ডের খ্যাতি হ্রাস। অন্যদিকে একজন ব্যক্তি তার ব্যক্তিগত এবং গুরুত্বপূর্ণ নথি, যেমন পারিবারিক ছবি, ট্যাক্স এবং আর্থিক রেকর্ড হারাতে পারেন। এটি তার মানসিকতার উপর উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলতে পারে। ব্যাকআপ ম্যানুয়ালি বা স্বয়ংক্রিয়ভাবে করা হোক না কেন, এটি একটি অপরিহার্য প্রক্রিয়া যা এড়িয়ে যাওয়া অসম্ভব।

আপনার ডেটা ব্যাক আপ করার বিভিন্ন উপায় রয়েছে। সেগুলো হল ক্লাউড স্টোরেজ, এক্সটার্নাল হার্ড ড্রাইভ এবং নেটওয়ার্ক-সংযুক্ত স্টোরেজ (NAS)। এই ব্যাকআপ পদ্ধতিগুলি সাশ্রয়ী মূল্যের এবং ব্যবহার করা সহজ। অতএব, ডেটা সুরক্ষা নিশ্চিত করার জন্য নিয়মিতভাবে ডেটা আপডেট করা, পরিষ্কার করা বা প্রতিস্থাপন করা অপরিহার্য।

ডেটা ব্যাক আপ করা একটি অপরিহার্য প্রক্রিয়া যা উপেক্ষা করা উচিত নয়। এটি হার্ডওয়্যার ব্যর্থতা, দুর্ঘটনাজনিত মুছে ফেলা এবং সাইবার নিরাপত্তা হুমকির মতো বিভিন্ন কারণে ডেটা ক্ষতির বিরুদ্ধে সুরক্ষা প্রদান করে। ডিজিটাল প্রযুক্তির বৃদ্ধির ফলে তথ্য সংরক্ষণের পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়েছে, তাই এটি ডেটা সুরক্ষিত করার প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দেয়। ক্লাউড স্টোরেজ, এক্সটার্নাল হার্ড ড্রাইভ এবং নেটওয়ার্ক স্টোরেজের মতো বেশ কয়েকটি ব্যাকআপ বিকল্প রয়েছে। অতএব, ব্যবসা এবং ব্যক্তিদের তাদের ডেটা সঞ্চয়ের প্রয়োজনের জন্য সেরা ব্যাকআপ বিকল্পটি সনাক্ত করতে হবে।

আমি কিভাবে ভবিষ্যতে ডেটা ক্ষতি প্রতিরোধ করতে পারি?

আজকের বিশ্বে ডেটা একটি অমূল্য সম্পদ। এটি ব্যবসা, ব্যক্তিগত জীবন বা অন্য কোন প্রয়োজনীয় বিষয়ের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য রাখে। ডেটা হারানো আপনার জন্য বিপর্যয় বয়ে আনতে পারে। তাই ভবিষ্যতে ডেটা ক্ষতি এড়াতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আপনার ডেটা সুরক্ষিত রাখার জন্য এখানে কিছু টিপস রয়েছে:

  • উন্নত নিরাপত্তা ব্যবস্থায় পর্যাপ্ত বিনিয়োগ: ডেটা-ক্ষয় রোধ করতে ব্যবসাগুলি যে প্রথম পদক্ষেপ নিতে পারে তা হল উন্নত নিরাপত্তা ব্যবস্থায় বিনিয়োগ করা। ডেটা হ্যাকার এবং সাইবার অপরাধীরা ক্রমবর্ধমান পরিশীলিত হয়ে উঠছে এবং শুধুমাত্র ঐতিহ্যগত আইটি নিরাপত্তা ব্যবস্থাই উপযুক্ত নাও হতে পারে। উন্নত নিরাপত্তা ব্যবস্থাগুলিতে বিনিয়োগ ব্যবসাগুলিকে তাদের সংবেদনশীল ডেটার উপর আক্রমণ সনাক্ত করতে এবং প্রতিরোধ করতে সক্ষম করবে৷ এই ব্যবস্থাগুলির মধ্যে রয়েছে উন্নত এনক্রিপশন কৌশল, মাল্টি-ফ্যাক্টর প্রমাণীকরণ এবং ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক (ভিপিএন) ব্যবহার।

  • নিয়মিত ব্যাকআপ: ডেটা ক্ষতি রোধ করার সবচেয়ে সহজ এবং সবচেয়ে কার্যকর উপায় হল আপনার গুরুত্বপূর্ণ ফাইলগুলির ব্যাকআপ রাখা। আপনি আপনার ডেটার কমপক্ষে দুটি কপি রাখুন, একটি আপনার স্থানীয় ডিভাইসে এবং অন্যটি হার্ড ডিস্ক বা ক্লাউড স্টোরেজের মতো বাহ্যিক স্টোরেজে। এটি আপনাকে দুর্ঘটনাজনিত মুছে ফেলা, হার্ডওয়্যার ব্যর্থতা বা অন্য যেকোন ধরণের ডেটা ক্ষতির বিরুদ্ধে একটি সুরক্ষা বলয় তৈরি করতে পারবেন৷
  • শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন: একটি দুর্বল পাসওয়ার্ড ব্যবহার করার অর্থ হলো হ্যাকার এবং ডেটা লঙ্ঘনকারীদের সাদরে আমন্ত্রণ জানানো। শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন যা অনুমান করা কঠিন। একাধিক অ্যাকাউন্টের জন্য একই পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন এবং নিয়মিত আপনার পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করুন। পাসওয়ার্ডে অবশ্যই বড় এবং ছোট হাতের অক্ষর, সংখ্যা এবং বিশেষ অক্ষর থাকতে হবে।

  • অ্যান্টিভাইরাস সুরক্ষা ব্যবহার করুন: ম্যালওয়্যার এবং ভাইরাসগুলি ডেটা হারাতে পারে বা এমনকি আপনার ব্যক্তিগত তথ্যে  গুপ্তচরবৃত্তি করতে পারে। একটি আপ-টু-ডেট অ্যান্টিভাইরাস প্রোগ্রাম ব্যবহার করুন এবং আপনার সিস্টেমকে যেকোনো ক্ষতিকারক সফ্টওয়্যার থেকে রক্ষা করতে এটি সক্রিয় রাখুন।

  • সফটওয়্যার আপডেট করুন: পুরানো সফ্টওয়্যারের দুর্বলতা থাকতে পারে যা হ্যাকাররা আপনার ডেটাতে অ্যাক্সেস পেতে কাজে লাগাতে পারে। আপনার অপারেটিং সিস্টেম, অ্যান্টিভাইরাস এবং আপনি নিয়মিত ব্যবহার করেন এমন সকল সফটওয়্যার আপ টু ডেট রাখতে ভুলবেন না।

  • নিরাপদ নেটওয়ার্ক ব্যবহার করুন: আপনার ডেটাতে অননুমোদিত অ্যাক্সেস রোধ করার জন্য একটি নিরাপদ নেটওয়ার্ক অপরিহার্য। ফায়ারওয়াল সক্ষম করুন, আপনার Wi-Fi নেটওয়ার্কের জন্য সুরক্ষিত পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন এবং ঘন ঘন পরিবর্তন করুন। অনিরাপদ পাবলিক ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্কের সাথে সংযোগ এড়িয়ে চলুন এবং অতিরিক্ত নিরাপত্তার জন্য একটি VPN ব্যবহার করুন।

  • সঠিক প্রশিক্ষণ নিন: সঠিক প্রশিক্ষণ হতে পারে ডাটা ক্ষতি প্রতিরোধের চাবিকাঠি৷ আপনার ডেটা সুরক্ষিত করার প্রয়োজনীয় বিষয়সমূহ সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন৷ আরো জানুন কীভাবে স্ক্যাম এবং ফিশিং ইমেলগুলি সনাক্ত করতে হয় এবং আপনার ডেটা চুরি হলে কি কি পদক্ষেপ নেয়া যায়৷

  • এনক্রিপশন ব্যবহার করুন: এনক্রিপশন এর সঠিক ব্যবহার ডেটা ক্ষতি প্রতিরোধ করতে সাহায্য করতে পারে। এনক্রিপশনের মধ্যে একটি কোডে সংবেদনশীল তথ্য এনকোড করা জড়িত যা শুধুমাত্র সঠিক এনক্রিপশন কী সহ অনুমোদিত কর্মীদের দ্বারা ডিক্রিপ্ট করা যায়। এতে যদি কোনো আক্রমণকারী ডেটাতে অ্যাক্সেস লা লাভ করে তাহলে তারা এটি বুঝতে সক্ষম হবে না। এনক্রিপশন বিশ্রামে থাকা ডেটা এবং ট্রানজিটের ডেটা যেমন ফাইল স্থানান্তরের সময় উভয় ক্ষেত্রেই প্রয়োগ করা যেতে পারে।

  • ডাটা সিকিউরিটি বিষয়ে স্টাফদের প্রশিক্ষণ দিন: ডেটা সুরক্ষার ক্ষেত্রে অনেক কর্মচারী প্রায়শই অদক্ষ বা অসতর্ক হন। ডেটা লঙ্ঘন প্রায়শই অসাবধান বা দূষিত অভ্যন্তরীণ ব্যক্তিদের দ্বারা সৃষ্ট হয়।  ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলিকে তাদের কর্মীদের ডেটা সুরক্ষার সর্বোত্তম অনুশীলন সম্পর্কে প্রশিক্ষণ দিতে হবে। এই প্রশিক্ষণে নিরাপদ পাসওয়ার্ড ব্যবস্থাপনা, অ্যান্টি-ফিশিং কৌশল এবং সন্দেহজনক ইমেল বা লিঙ্কগুলি খোলা এড়ানোর উপায়গুলি সম্পর্কে গভীর ধারণা প্রদান করতে হবে।

  • নিয়মিত নিরাপত্তা অডিট পরিচালনা: নিয়মিত নিরাপত্তা অডিট ব্যবসায়িক আইটি সিস্টেমে দুর্বলতা চিহ্নিত করতে সাহায্য করতে পারে। এই অডিটগুলি সেই ক্ষেত্রগুলিকে হাইলাইট করতে পারে যেখানে ডেটা ক্ষতির সম্ভাবনা কমাতে নিরাপত্তা ব্যবস্থাগুলিতে অতিরিক্ত বিনিয়োগের প্রয়োজন। কর্মীরা ডেটা সুরক্ষার সর্বোত্তম অনুশীলনগুলি অনুসরণ করছেন তা নিশ্চিত করতে ব্যবসাগুলিকে এই অডিটগুলি পরিচালনা করতে হবে। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো এই অডিটগুলি নিশ্চিত করে যে আপনার ব্যবসাগুলি শিল্পের নিয়ম এবং মানগুলি মেনে চলছে।

  • প্রাসঙ্গিক ডেটা সুরক্ষা প্রবিধান মেনে চলুন: সংস্থাগুলিকে অবশ্যই নিশ্চিত করতে হবে যে তারা প্রাসঙ্গিক ডেটা সুরক্ষা প্রবিধানগুলি মেনে চলছে। জেনারেল ডেটা প্রোটেকশন রেগুলেশন (জিডিপিআর) এবং ক্যালিফোর্নিয়া কনজিউমার প্রাইভেসি অ্যাক্ট (সিসিপিএ) এর মতো প্রবিধানগুলির সাথে সম্মতি সংস্থাগুলিকে শক্তিশালী ডেটা সুরক্ষা ব্যবস্থা স্থাপনে সহায়তা করতে পারে। কমপ্লায়েন্সের জন্য সংস্থাগুলিকে ডেটা ইনভেন্টরিিং, ডেটা প্রসেসিং অ্যাসেসমেন্ট এবং ডেটা সিকিউরিটি অডিটের মতো ব্যবস্থাগুলি বাস্তবায়ন করতে হবে।

উপসংহার

ডেটা ক্ষতি একটি ব্যবসার গোপনীয়তা, খ্যাতি এবং আর্থিক অবস্থার উপর গুরুতর পরিণতি নিয়ে আসতে পারে। উন্নত নিরাপত্তা ব্যবস্থায় বিনিয়োগ, কার্যকর ডেটা ব্যাকআপ প্রক্রিয়া, তথ্য সুরক্ষার বিষয়ে কর্মীদের প্রশিক্ষণ এবং নিয়মিত নিরাপত্তা অডিট পরিচালনা করে ব্যবসাগুলি তাদের মূল্যবান ডেটা হারানোর ঝুঁকি উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করতে পারে। ব্যবসাগুলিকে অবশ্যই সতর্ক থাকতে হবে এবং ভবিষ্যতে ডেটা ক্ষতি রোধ করতে তাদের দক্ষ আইটি সুরক্ষা ব্যবস্থা গড়ে তুলতে হবে।




অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

নটিফিকেশন ও নোটিশ এরিয়া